ঘরে বসেই ই পাসপোর্টের টাকা জমা দেওয়ার নিয়ম ২০২৪

ই পাসপোর্টের টাকা জমা দেওয়ার নিয়ম। দেশের বাইরে যেতে হলে অবশ্যই পাসপোর্ট থাকতে হবে। কেননা পাসপোর্ট একটি ব্যক্তির পরিচয় বহন করে। পাসপোর্ট বাহিরের দেশের আই ডি কার্ড। বাংলাদেশে যেমন নাশনাল আইডি কার্ড থাকা একজন নাগরিকের বাধ্যতামুলক তেমনি একজন প্রবাসীর পাসপোর্ট থাকা বাধ্যতামূলক।

পাসপোর্ট করার পূর্বে আপনাকে কিছু বিষয় জানতে হবে যেমন ই পাসপোর্ট অনলাইনে কিভাবে করতে হয়, পাসপোর্ট করতে কি কি লাগে, ই পাসপোর্ট ফি কত, এবং ই পাসপোর্টের টাকা জমা দেওয়ার নিয়ম সহ আরো বেশ কিছু গুরুপ্ত পূর্ণ তথ্য। 

আর এ সব তথ্য এই আর্টকেলের মাধ্যমে আপনাকে জানানো হবে। ই পাসপোর্টের টাকা ঘরে বসে পরিশোধ করার সহজ মাধ্যম দেখাব। পাশাপাশি ব্যাংকের মাধ্যমে ই পাসপোর্ট ফি পরিশোধের নিয়ম নীতি আলোচনা করা হবে।

ই পাসপোর্টের টাকা জমা দেওয়ার নিয়ম ২০২৪

ই পাসপোর্টের টাকা জমা দেওয়ার নিয়ম ২০২৪। পাসপোর্টে আবেদন করার পর আপনাকে পাসপোর্ট ফি পরিশোধ করিতে হইবে। পাসপোর্টের মেয়াদ এবং পৃষ্ঠার উপর পাসপোর্ট ফি নির্ধারন করা হয়ে থাকে। পাসপোর্টের টাকা চালানের মাধ্যমে পরিশোধ করা যায়।

আর এ চালান দুই ভাবে করা যায় একটি হচ্ছে অনলাইনে ঘরে বসে অপরটি বাংকের মাধ্যমে। দুটি পদ্ধতিই এ অনুচ্ছদে আলোচনা করা হবে। আশা করি ই পাসপোর্টের টাকা জমা দেওয়ার নিয়ম নিয়ে আর কোন প্রশ্ন থাকবে না।

২০২৪ সালে ই পাসপোর্ট ফি কত সেই বিষয়ে আগে জানতে হবে। ২০২৪ সালে সর্বশেষ কথা টাকা ব্যাংক ড্রাফট করতে হয় সেই বিষয় এখানে ক্লিয়ার করা হবে। তো চলুন নিচের পয়েন্ট গুলো মনোযোগ সহকারে পড়ি।

ই পাসপোর্টের টাকা বা ফি জমা দেওয়ার প্রয়োজনীয় ডকুমেন্টস

আপনি যদি ই পাসপোর্টের জন্য অনলাইনে আবেদন করতে চান তাহলে কিছু ডকুমেন্টস প্রয়োজন। আর সেই ই পাসপোর্ট ফি জমা দেওয়ার সময় সেই ডকুমেন্টস গুলো সাথে রাখতে হবে। কি কি কাগজ প্ত্র প্রয়োজন একটি পাসপোর্টের ফি দেওয়ার সময় সেগুলো নিচে দেওয়া হল।

  • পাসপোর্টের পৃষ্ঠা সংখ্যা
  • পাসপোর্টের মেয়াদের সময় সীমা
  • পাসপোর্টের ডেলিভারীর ধরণ- সাধারণ ডেলিভারী, এক্সপ্রেস ডেলিভারী, সুপার এক্সপ্রেস ডেলিভারী।
  • ব্যাক্তিগত পরিচিতি নম্বর- জাতীয় পরিচয়পত্র বা জন্ম নিবন্ধন নম্বর( আপনি যা দিয়ে আবেদন করেছিলেন)
  • পাসপোর্ট আবেদন অনুসারে নাম (ইংরেজি নাম)
  • পাসপোর্ট আবেদন অনুসারে ঠিকানা (বর্তমান)
  • মোবাইল নম্বর ( আপনি যেই নাম্বার টা আবেদনের সময় দিয়েছিলেন)

উপরে উল্লেখিত ডকুমেন্টস যদি আপনার সাথে থাকে তাহলে ই পাসপোর্ট ফি পরিশোধের সময় কোন চিন্তা করতে হবে না। তাই পাসপোর্ট ফি প্রদানের পূর্বে এসব ডকুমেন্টস সাথেই রাখুন।

অনলাইনে ই পাসপোর্টের টাকা জমা দেওয়ার নিয়ম।

পাসপোর্টের টাকা দুইভাবে পরিশোধ করা যায় যার একটি ব্যাংকের মাধ্যমে অন্য টি অনলাইনে চালানের মাধ্যমে। এই পর্বে আমরা অনলাইনে কিভাবে ই পাসপোর্ট ফি প্রদান করা যায় সে বিষয়ে বিস্তারিত তথ্য তুলে ধরব।

টাকা পাঠানোর পূর্বে প্রয়োজনীয় ডকুমেন্টস সাথে রাখতে হবে উপরে প্রয়োজনীয় সকল ডকুমেন্ট নিয়ে কথা বলেছি। সেখান থেকে ডকুমেন্টস গুলো সংগে নিয়ে নিন। এবার মূল কাজ শুরু করা যাক।
অনলাইনে ই পাসপোর্ট টাকা পরিশোধ করার জন্য A Challan  web site প্রবেশ করতে হবে। ওয়েভ সাইটের হোম পেইজ থেকে ফি লেখায় ক্লিক করতে হবে। 

তারপর পাসপোর্টের পৃষ্ঠা সংখ্যা, মেয়াদ ও ডেলিভারীর ধরন উল্লেখ করে দিতে হবে।

এর পর পাসপোর্ট ধারীর নাম ঠিকানা, আবেদনের সময় যে মোবাইল নং দিয়েছিলেন তা দিতে হবে। এ সকল তথ্য দেওয়ার পর যে কোন একটি ব্যাংক সিলেক্ট করতে হবে। পেমেন্ট করে চালানের প্রিন্ট কপি সংগ্রহ করে রাখতে হবে।

ধাপ ১ পাসপোর্ট ফি পেমেন্ট করার জন্য প্রথমে Automated Challan System Bangladesh এ একট চালান বানাতে হবে। এর জন্য A Challan সাইটে প্রবেশ করুন।

ধাপ ২ পাসপোর্ট অপশন থেকে ই পাসপোর্ট ফি অপশনে সিলেক্ট করুন। এরপর নিচের দিকে ফলো করুন। 

ধাপ ৩ যার পাসপোর্টের ফি দিতে চাচ্ছেন তার ভোটার আই ডি কার্ড বা জন্ম নিবন্ধন আইডি নাম্বার, তার নাম, ঠিকানা, বর্তমান ঠিকানা, এবং তার মোবাইল নাম্বার লিখতে হবে। এখানে ইমেল আইডি অপশনাল লিখতেই পারেন আবার নাও লিখতে পারেন।

এখানে একটি বিষয় লক্ষ্যনীয় যে নাম ঠিকানা পূরন করার পূর্বে অবশ্যই পাসপোর্টের আবেদনের সাথে মিল রেখে ফরম পূরন করতে হবে। যদি জাতীয় পরিচয় পত্র দ্বারা পাসপোর্ট করা হয় তাহলে ভোটার আইডি কার্ডের নাম্বার দিতে হবে।

আর যাদের বয়স ২০ বছরের কম আই ডি কার্ড হয় নি। তাদের জন্ম নিবন্ধন নম্বর দিতে হবে। 

মনে রাখতে হবে কোন শব্দ যেন ভূল না হয়। যদি কোন কারনে ভুল হয় তাহলে এ চালান আর গ্রহন করা হবে না। তাই সকল ডকুমেন্টস শুদ্ধভাবে পূরন করুন। তার পর ব্যাংক বাচাই করুন এ ক্ষেত্র আপনার সুবিধা মত যে কোন ব্যাংক সিলেক্ট করতে পারেন। 

পাসপোর্টের পেমেন্ট সিস্টেম 

তবে সোনালী ব্যাংক সিলেক্ট করুন যদি রকেট, বিকাস, নগদ দিয়ে ফি পেমেন্ট করতে চান। সোনালী ব্যাংকের অনলাইন একাউন্ট, ডেবিট ও ক্রেডিট কার্ড থেকেও পেমেন্ট করতে পারবেন।

উপরের সব কিছু ঠিক থাকলে save বাটনে ক্লিক করুন। আপনাকে সোনালী ব্যাংকের পেমেন্ট গেটওয়েতে নিয়ে যাবে।

ধাপ ৪ এখান থেকে যে কোন অপশন সিলেক্ট করুন যেমন  Account/Visa Card / Master Card/ Amex Card অথবা Mobile Banking অপশন সিলেক্ট করে পেমেন্ট করুন।

সতর্কতাঃ পাসপোর্টের টাকা পেমেন্ট করার সময় খেয়াল রাখতে হবে কোন কারনে নেটওয়ার্ক বা কারেন্টের বিচ্যুতি না ঘটে। 

যদি এমন টা হয় আপনার একাউন্ট থেকে টাকা কেটে নেওয়া হয়েছে Transaction failed বা লেন্দেন সফল হয়নি। এমন বস্থায় আপনি পেইজটি ভূলেও কাটবেন না। এই পেইজের লিংক থেকে চালান নাম্বার কালেক্ট করে রাখতে হবে। যা পরবর্তীতে  টাকা ফিরে পেতে প্রমান স্বরপ কাজে দিবে।

নগদ, বিকাস, রকেট দিয়ে ই পাসপোর্ট ফি দেওয়ার নিয়ম

যদি মোবাইলে ব্যাংকিং এর মাধ্যমে টাকা পরিশোধ করতে চান তাহলে নিচের দেখানো পদ্ধিতি অবলম্বন করতে হবে।

আশা করি ৪ নং ধাপ পর্যন্ত কাজ সঠিক ভাবেই করেছেন। এবার সোনালী ব্যাংক সিলেক্ট করে save বাটনে ক্লিক করুন। ক্লিক করার সাথে সাথে সোনালী ব্যাংকের পেমেন্ট গেটওয়ে নেওয়া হবে। এখানে মোবাইল ব্যাংকিং সিলেক্ট করে পেমেন্ট নিশ্চিত করুন।নগদ, বিকাস, রকেট দিয়ে ই পাসপোর্ট ফি দেওয়ার নিয়ম

আপনার সুবিধা অনুযায়ী যেকোন মোবাইল ব্যাংকিং সিলেক্ট করে নিন। 

এখানে, Pay with Roket বাটনে ক্লিক করুন। রকেট পেমেন্ট অপশন আসলে আপনার বার ডিজিটের রকেট নাম্বারটি দিন। ওই নাম্বারে একটি এসএমএস প্রেরন করা হবে সেই এসএমএস থেকে কোড নাম্বার নিয়ে ভেরিফিকেশন করুন।

এবার আপনার রকেটের চার ডিজিটের পিন নাম্বার সিলেক্ট করুন। এবং লেন্দেন নিশ্চিত হয়ে নিন।

মোবাইলের মাধ্যমে ই পাসপোর্টের টাকা জমা দেওয়ার নিয়ম

আপনি চাইলে মোবাইল দিয়ে ই পাসপোর্টের টাকা জমা দিয়ে পারবেন। এ জন্য আপনাকে একটি আপ্স ইন্সটল করে নিতে হবে।

এ জন্য গুগল প্লে স্টোর এ a challan লিখে সার্চ করুন। আপনার সামনে যে আপ্সটি প্রথমে আসবে সেটিই ইন্সটল করে নিন।

উপরে দেওয়া পাসপোর্ট ফি ধাপগুলো অনুসরন করুন। টাকা পরিশোধ করার ক্ষেত্রে সর্তকতা গুলো মেনে চলুন।

চালান সেভ করলে না পারলে করনীয়। 

অনলাইনে ই পাসপোর্টের টাকা পে করতে মাঝে মাঝে ট্রাঞ্জেকশন ফেইল লেখা আসে। অথ্যাত টাকা কেটে নেয় কিন্তু পেমেন্ট সফল হয় না। এমন টা আপনার সাথে হলে চিন্তা করবেন না।

আমরা এ পর্বে ই পাসপোর্টের টাকা পরিশোধের সময় কোন কোন কাজ করবেন আর কোন কোন কাজ করবেন না সেটি ক্লিয়ার করে দিব।

  • আপনি যেই পেইজে পেমেন্ট করবেন সেটি ক্লোজ করবেন না।
  • আপনাকে সেই পেইজের লিংক কপি করে নিতে হবে।
  • কপি করা লিংকটি নোড়প্যাড বা টেক্স ফাইলে পেস্ট করুন।
  • এবার দেখতে পাবেন লিংকের মধ্যে এমন 2122-00019776593 একটি নাম্বার রয়েছে সেই নাম্বারটি আপনার চালান নাম্বার।
  • এবার Online Challan Verification  প্রবেশ করুন
  • নিচের দিকে Challan verify অপশন পাবেন 
  • সেখানে প্রথম ঘরে চার ডিজিট এবং পরের ঘরে ১১ ডিজিটের চালান নাম্বার প্রবেশ করান।
  • সব শেষে ভেরিফাই বাটনে ক্লিক করুন।
  • এখানে পাওয়া চালানের PDF FILE সংরক্ষন করে নিন।

উপরের যে পদ্ধতি দেখেয়েছি সেই পদ্ধতি চালান রসিক পাওয়ার কথা। যদি কোন কারনে না পান তাহলে সোনালী ব্যাংকের পেমেন্ট গেটওয়ের ফেজবুক সাপোর্ট গ্রুপে যোগাযোগ করুন।

কোন কোন ব্যাংকে পাসপোর্টের টাকা জমা দেওয়া যায়

অনলাইনে যে সব ব্যাংক থেকে টাকা পাঠাতে পারবেন সে ব্যাংক গুলোর নাম নিচে দেওয়া হল।

  • A B Bank
  • Eastern Bank
  • First Security Islami Bank
  • Agrani Bank
  • Dutch Bangla Bank
  • Bangladesh Commerce Bank
  • BRAC Bank
  • Southeast Bank
  • Premier Bank
  • Sonali Bank
  • Islami Bank
  • Midland Bank
  • NRB Commercial Bank
  • One Bank

আরো জানুনঃ

বিদেশ থেকে ই পাসপোর্টের ফি জমা দেওয়ার নিয়ম

আপনারা চাইলে বিদেশ থেকে ই পাসপোর্টের ফি জমা দিতে পারবেন। মধ্যপ্রাচ্যের দেশ গুলোর মধ্য সৌদি আরব, কাতার, মালাইসিয়া ইত্যাদি দেশের বাংলাদেশী নাগরীক কিভাবে ই পাসপোর্টের ফি দিবেন সে বিষয়ে নিচে আলোচনা করব।

শেষ কথা

পাসপোর্ট ফি নিয়ে যত কথা আছে এই আর্টিকেলে সংযুক্ত করেছি। আপনি যদি শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত পড়ে থাকেন তাহলে ই পাসপোর্ট পাসপোর্টের টাকা জমা দেওয়ার নিয়ম জেনে গেছেন। খুব সহজে অনলাইনে ঘরে বসে পাসপোর্ট চালান পে করা যায়।

তাছাড়া ব্যাংকে টাকা জমা দেওয়ার নিয়ম উল্লেখ করেছি। বাংলাদেশে আগে সোনালী ব্যাংকে ফি জমা নেওয়া হত কিন্ত এখন আরো পাচ টি ব্যাংকে টাকা জমা দেওয়া যায়। ব্যাংক গুলো হল ঢাকা ব্যাংক, ব্যাংক এশিয়া, প্রিমিয়ার ব্যাংক, ওয়ান ব্যাংক ও ট্রাস্ট ব্যাংক।

আপনার যদি পাসপোর্ট ফি বিষয়ে কোন প্রশ্ন থাকে তাহলে কমেন্ট বক্সে লিখুন আমরা উত্তর দেওয়ার চেষ্টা করব। পাসপোর্টের নিয়মিত আপডেট পেতে আমাদের সাথেই থাকুন।

ই পাসপোর্টের টাকা জমা দেওয়ার নিয়ম নিয়ে অধিক জিজ্ঞায়িত প্রশ্ন

প্রশ্নঃ পাসপোর্ট ব্যাংক ড্রাফট কত?

উওরঃ ৫ বছর মেয়াদি ৪৮ পাতার ই-পাসপোর্ট সুপার এক্সপ্রেস ডেলিভারী ২ দিনে পেতে ফি দিতে হবে ৮,৬২৫ টাকা। এক্সপ্রেস ডেলিভারীর জন্য ৬৩২৫ টাকা এবং নরমাল ডেলিভারীর জন্য ৪০২৫ টাকা।

৫ বছর মেয়াদি ৬৪ পাতার ই-পাসপোর্ট সুপার এক্সপ্রেস ডেলিভারী ২ দিনে পেতে ফি দিতে হবে ১২,০৭৫ টাকা। এক্সপ্রেস ডেলিভারীর জন্য ৮৬২৫ টাকা এবং নরমাল ডেলিভারীর জন্য ৬৩২৫ টাকা।

প্রশ্নঃ ই পাসপোর্ট কত দিনে পাওয়া যায়? 

উওরঃ নরমাল ডেলিভারীর জন্য আবেদন করলে ১৫ থেকে ২১ দিনে পাওয়া যাবে। জরুতি ই পাসপোর্টের জন্য ফিঙ্গার দেওয়ার পর দিন থেকে ৭ থেকে ১০ কার্যদিবসে পাওয়া যাবে। সুপার এক্সপ্রেস ডেলিভারীর জন্য মাত্র দুই দিন সময় লাগে।

প্রশ্নঃ পাসপোর্ট ব্যাংক ড্রাফট এর মেয়াদ কত দিন থাকে?

উওরঃ পাসপোর্টের ফি ব্যাংকে ড্রাফট করার পর এই পেমেন্টের মেয়াদ ৬ মাস থাকে।

প্রশ্নঃ কোন কোন ব্যাংকে পাসপোর্টের টাকা জমা দেওয়া যায়?

উত্তরঃ যে সব ব্যাংকে পাসপোর্টের টাকা জমা দেওয়া যায় তা হল। সোনালী ব্যাংক, ঢাকা ব্যাংক, ব্যাংক এশিয়া, প্রিমিয়ার ব্যাংক, ওয়ান ব্যাংক ও ট্রাস্ট ব্যাংক।

Comments are closed.