শবে মেরাজ কত তারিখে ২০২৪

পৃথিবীর শ্রেষ্ঠ ধর্ম ইসলাম। ইসলাম ধর্মের পবিত্র গ্রন্থ হচ্ছে আল কুরআন। আল কুরআনে শবে মেরাজ বা মেরাজের রাত্রি সম্পর্কে বর্ণনা করা হয়েছে। মিরাজ আরবি শব্দ যার বাংলা অর্থ উপর দিকে ওঠা বা আরোহণ করা। সহজ ভাষায় শেষ নবী হযরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাই সাল্লাম যে রাতে মহান আল্লাহ তাআলার সাথে সাক্ষাৎ করেন সে রাতকে মেরাজের রাত্রি বা শবে মেরাজ বলা হয়।

ইসলামের গুরুত্বপূর্ণ দিনগুলির মত শবে মেরাজের এই দিনটিও মুসলমানদের জন্য অনেক গুরুত্বপূর্ণ। আমরা শবে মেরাজ সম্পর্কে জানলেও শবে মেরাজ কত তারিখে তা হয়ত অনেকেই জানি না। আজকের এই পোষ্টে শবে মেরাজ সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করা হয়েছে।

শবে মেরাজ ২০২৪

পবিত্র শবে মেরাজের রাত সকল মুসলমানদের জন্য এক মহামান্বিত রাত। এই রাতে সকল ধর্মপ্রাণ মুসল্লীগণ নফল ইবাদতের মাধ্যমে মহান আল্লাহতালার সন্তুষ্টি অর্জন করতে চায়। আরবি ক্যালেন্ডার অনুযায়ী 27 শে রজব পবিত্র শবে মেরাজ পালন করা হয়। এই হিসেবে চলতি বছর ইংরেজি ক্যালেন্ডার এর ৮ই ফেব্রুয়ারি রোজ বৃহস্পতিবার দিবাগত রাতে শবে মেরাজ পালন করা হবে।

  • ইংরেজি – ০৮ই ফেব্রুয়ারি
  • বাংলা – ২৪ মাঘ, ১৪৩০
  • আরবি – ২৭ রজব, ১৪৪৫
  • রোজ – বৃহস্পতিবার

শবে মেরাজ কত তারিখে

ইসলামী পরিভাষায় প্রিয় নবী হযরত মুহাম্মদ সাঃ হিজরতের পূর্বে মহান আল্লাহর নির্দেশে জিব্রাইল আঃ এর সাথে ৭ আসমান আরোহন করে মহান আল্লাহ তায়ালার সাথে সাক্ষাৎ ও বাক্যলাপ করেন। এই ঘটনাটি যে রাতে ঘটেছিল সে রাতকে মূলত শবে মেরাজ বলা হয়ে থাকে। মহান আল্লাহর সাথে সাক্ষাৎ ও বাক্যলাপ করা ছাড়াও এই রাতে প্রিয় নবী হযরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাই সাল্লাম জান্নাত ও জাহান্নাম ঘুরে দেখেন।

আমরা অনেকেই মেরাজের রাত কত তারিখে তা জানতে চাই। নির্দিষ্ট করে মেরাজের রাত কত তারিখে তা বলা যায় না। তবে ধারণা করা হয় হিজরতের দু’বছর আগে ইংরেজি ৬২০ খ্রিস্টাব্দের ৮ই মার্চ শবে মেরাজ সংঘটিত হয়েছিল। সেই হিসেবে অনুযায়ী আগামী ৮ই ফেব্রুয়ারি রোজ বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত হলো শবে মেরাজের রাত।

শবে মেরাজ আরবি মাসের কত তারিখ?

কুরআন বা হাদিসের কোথাও নির্দিষ্ট করে বলা হয়নি কত তারিখে শবে মেরাজ সংঘটিত হয়েছিল। আর সে সময় সাল বা তারিখ গণনা করে রাখা হতো না তাই মেরাজের রাত কত তারিখ তা নির্দিষ্ট করে বলা যাবে না। তবে কত তারিখে শবে মেরাজ সংঘটিত হয়েছিল এ নিয়ে হাদীস বিশেষজ্ঞ ও বিভিন্ন ওলামায়ে কেরামের মধ্যে মতপার্থক্য দেখা যায়। হাফিজ ইবনে হাজার আসকালানী বলেন, কত তারিখে শবে মেরাজ সংঘটিত হয়েছিল এ নিয়ে ১০ টিরও অধিক অভিমত রয়েছে। (ফাতহুল বারী, ৭ম খণ্ড, ২০৩ পৃষ্ঠা)

তবে ইমাম ইবনুল জাওযীর মতে নবুয়তের আগে আরবি রজব মাসের ২৭ তারিখ রাতে মেরাজ সংঘটিত হয়েছিল। তার এই মত অনুসারে বাংলাদেশে ২৭ তারিখ শবে মেরাজ পালিত হয়ে আসছে। ইমাম ইবনুল জাওযীর ছাড়াও আরো অনেকেই শবে মেরাজের রাত নিয়ে মত প্রকাশ করেছে। নিচে তাদের কয়েকজনের মত তুলে ধরা হলো।

  • ইবনে ফারিস বলেন, মহানবী হযরত মুহাম্মদ সঃ এর হিজরতের পনের মাস আগে শবে মেরাজ সংঘটিত হয়েছিল।
  • ইবনে কুতাইবার বর্ণনায় দেখা যায় হিজরতের আঠার মাস আগে মেরাজ সংঘটিত হওয়ার কথা বলা হয়েছে।
  • ইবনুল আসীর এর মতে, শবে মেরাজ প্রিয় নবী হযরত মুহাম্মদ সঃ এর হিজরতের তিন বছর আগে সংঘটিত হয়েছিল।
  • কাজী ইয়ায এবং ইমাম নববী (রহঃ) প্রমুখ যোহর থেকে বর্ণনা করেছেন, হিজরতের ৫ বছর আগে মিরাজ সংঘটিত হয়েছিল। (ফাতহুল বারী, ৭ম খণ্ড, ২০৩ পৃষ্ঠা)

এছাড়াও আরো বেশ কিছু ওলামায়ে কেরাম শবে মেরাজ কবে সংঘটিত হয়েছিল এ নিয়ে মন্তব্য করেছেন। যেহেতু হাদিসে তারিখ উল্লেখিত হয়নি তাই আমরা কত তারিখ শবে মেরাজ সংঘটিত হয়েছিল তা নির্দিষ্ট করে বলতে পারবো না।

শবে মেরাজ কবে ২০২৪ বাংলাদেশ

মুসলিম বিশ্বের অন্যতম একটি গুরুত্বপূর্ণ রজনী হচ্ছে শবে মেরাজের রজনী। বিশ্বের সকল মুসলিম দেশগুলোতে এই দিবসটি পালন করা হয়। আমাদের বাংলাদেশেও যেহেতু বেশিরভাগ লোকজন মুসলমান তাই বাংলাদেশেও শবে মেরাজ পালন করা হয়ে থাকে। শুধুমাত্র তাই নয় এই দিবস উপলক্ষে সারা বাংলাদেশে সরকারি ছুটির দিন ঘোষণা করা হয়।

চলতি বছর অর্থাৎ 2024 সালের পবিত্র শবে মেরাজ ৮ই ফেব্রুয়ারি রোজ বৃহস্পতিবার অনুষ্ঠিত হবে। এড়াতে বাংলাদেশের মুসলমানগন সারারাত ইবাদত বন্দিগির মাধ্যমে কাটিয়ে থাকে। এছাড়াও বেশি বেশি কোরআন তেলাওয়াত করা সহ আরো অন্যান্য কাজগুলো করা হয়।

শবে মেরাজ কি বাংলাদেশে সরকারি ছুটির দিন?

বাংলাদেশের ৯৫% মানুষ মুসলিম হওয়ায় বাংলাদেশ মুসলিম দেশ হিসেবে বিশ্বে পরিচিতি পেয়েছে। ৯৫ ভাগ মানুষ মুসলিম হওয়ায় ইসলাম ধর্মের গুরুত্বপূর্ণ দিনগুলিতে সরকারি ছুটি ঘোষণা করা হয়ে থাকে। তাই অনেকেই জানতে চায় ২০২৪ সালের শবে মেরাজের দিন সরকারি ছুটি থাকবে কিনা। অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ দিনগুলিতে সরকারি ছুটি থাকলেও শবে মেরাজের দিন কোন সরকারি ছুটি দেওয়া হয় না। তবে অনেকেই শবে মেরাজের দিন নিজ ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করে থাকে।

শবে মেরাজ কি ও কেন পালন করা হয়

মিরাজের রাতে হযরত মুহাম্মদ সাঃ প্রথমে মক্কা থেকে জেরুজালেমে অবস্থিত মসজিদুল আকসায় গমন করেন। এ সময় সকল নবী রাসূলদেরকে নিয়ে তিনি ২ রাকাত সালাত জামাতে আদায় করেন। প্রিয় নবী হযরত মুহাম্মদ সাঃ নিজে এই জামাতের ইমামতি করেন। এরপর বিশেষ বাহনের মাধ্যমে সাত আসমান পাড়ি দিয়ে মহান আল্লাহ তায়ালার পক্ষ থেকে ইসলামের দ্বিতীয় স্তম্ভ ৫ ওয়াক্ত ফরজ সালাত আমাদের জন্য নিয়ে আসেন। এই ৫ ওয়াক্ত ফরজ সালাতের মাধ্যমে আমরা সরাসরি মহান আল্লাহর সাথে কথা বলতে পারি। প্রিয় নবীর আরোহনকে স্মরণীয় করে রাখার জন্য প্রতিবছর শবে মেরাজ পালিত হয়ে থাকে।

রজব মাসের কত তারিখে শবে মেরাজ

আমরা সবাই ইংরেজি মাস ও তারিখ ব্যবহার করায় আরবি মাস ও তারিখ সম্পর্কে কোন ধারণা রাখি না। তাই আমরা শবে মেরাজ আরবি রজব মাসের কত তারিখ পালিত হবে এ সম্পর্কে জানতে চাই। যদিও হাদিসে তারিখ উল্লেখ না থাকায় অনেক আলেম কত তারিখ মিরাজের রাত তা নিয়ে নানা মন্তব্য করেছে। তবে বাংলাদেশের রজব মাসের ২৭ তারিখ শবে মেরাজ হিসাবে পালন করা হয়।

শবে মেরাজের বিশেষ আমল

আমরা প্রতিদিন পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ, বছরে একমাস রোজা, সামর্থ্য হলে হজ পালন ও যাকাত দেওয়া সহ অনেক আমল করে থাকি। যার কারণে অনেকেই জানতে চায় শবে মেরাজের বিশেষ কোনো আমল আছে কিনা। শবে বরাতের মতো শবে মেরাজের বিশেষ কোনো আমলের কথা কুরআন এবং হাদিসের কোথাও বর্ণিত হয়নি। তারপরও অনেক মুসলমান ভাই বোনেরা শবে মেরাজ উপলক্ষে নানা ধরনের কাজ করে থাকে যা বেদআত হিসাবে গণ্য হবে।

শবে মেরাজ কি বারে

ইতিমধ্যে আমরা জেনেছি যে ২০২৪ সালের শবে মেরাজ ৮ই ফেব্রুয়ারি দিবাগত রাতে অনুষ্ঠিত হবে। অনেকেই শবে বরাত কি বারে তা জানতে চেয়েছেন। যেহেতু আটই ফেব্রুয়ারি রোজ বৃহস্পতিবার। অর্থাৎ এ বছর রোজ বৃহস্পতি বারে পবিত্র শবে বরাত পালিত হবে। সকল ধর্মপ্রাণ মুসল্লীগণ এ রাতে মহান আল্লাহ তায়ালার ইবাদত বন্দেগির মাধ্যমে পালন করে থাকেন। নফল নামাজের পাশাপাশি অনেকেই পবিত্র মেরাজ উপলক্ষে নফল রোজাও রেখে থাকেন।

শেষ কথা

আমরা যারা শবে মেরাজ কত তারিখে জানতাম না আশা করি এই পোস্ট থেকে তা জানতে পেরেছি। শবে মেরাজের শ্রেষ্ঠ উপহার হলো পাঁচ ওয়াক্ত সালাত। এই সালাতের ব্যাপারে আমাদের যত্নবান হতে হবে এবং শবে মেরাজ নিয়ে অনেক বিদআত আমাদের সমাজে প্রচলিত আছে যা থেকে বিরত থাকতে হবে।